Daily Poribar
Bongosoft Ltd.
ঢাকা শনিবার, ২০ এপ্রিল, ২০২৪, ৭ বৈশাখ ১৪৩১
স্বেচ্ছাচারিতার অভিযোগ

ভেনিস বাংলাদেশ প্রেসক্লাব থেকে ছয় সাংবাদিকের পদত্যাগ


দৈনিক পরিবার ফেব্রুয়ারি ১৭, ২০২৩, ০৭:৩১ পিএম ভেনিস বাংলাদেশ প্রেসক্লাব থেকে ছয় সাংবাদিকের পদত্যাগ

চলতি বছরেই গঠিত ভেনিস বাংলাদেশ প্রেস ক্লাব থেকে একযোগে ৬ জন সাংবাদিক পদত্যাগ করেছে। পদত্যাগকারী সাংবাদিকরা হলেন সহ সভাপতি নাজমুল হোসেন, যুগ্ম সম্পাদক মোহাম্মদ আসলামুজ্জামান, সাহিত্য ও প্রকাশনা সম্পাদক সজীব আল হোসাইন, প্রচার সম্পাদক আবু নাঈম ভূঁইয়া, সাংস্কৃতিক সম্পাদিকা টিসা সুলতানা এবং নির্বাহী কমিটির সদস্য হাফিজা আক্তার নাসরিন।
পদত্যাগী সাংবাদিকরা জানিয়েছেন, সংগঠনের শুরু থেকেই সকলকে সাথে নিয়ে কাজ করার ওয়াদা থাকলেও অভিষেকের আগে সংগঠনের সদস্য নয় এমন একজনকে উপদেষ্টা কমিটিতে নিয়োগ দেয়া হয়েছে। যা সভাপতি, সম্পাদক কোন সদস্যকে জানানোর প্রয়োজন মনে করেননি। নিজের স্বার্থ রক্ষার জন্য সভাপতি কোন সভা না করেই অভিষেক অনুষ্ঠানের তারিখ, সময়, অতিথি  নিজের সিদ্ধান্তে চূড়ান্ত করে ফেলেন। যা অনেকেই জানেন না। আমাদের বিজয় দিবস নিয়েও সমালোচনার পাত্র হয়েছেন তারা।  ১৬ই ডিসেম্বর পালন করা হবে সকল সদস্যকে নিয়ে মিটিংয়ে বসা হল, কমিটির সকলে সিদ্ধান্ত তা দিলেন তা না মেনে সভাপতি তার মন মতো মাত্র ৩ জন সদস্য এবং একজন উপদেষ্টাকে প্রধান অতিথি করে ঢালাওভাবে প্রচার করেছেন। এতে করে সংগঠনের ভাবমূর্তি নষ্ট হয়েছে এবং পরবর্তীতে সদস্যদের মধ্যে বিভাজন সৃষ্টি হয়েছে। এরকম অনেক সিদ্ধান্তই সভাপতি তার সদস্যদের না জানিয়ে নিজ মতের কয়েকজনের সাথে আলোচনা করে বাস্তবায়ন করে আসছেন। উদাহরণ হিসেবে এক সদস্য জানান, ভেনিসের এক প্রবাসী ভাইয়ের সংবাদ সম্মেলন করাকে কেন্দ্র করে। একটি সংবাদ সম্মেলন করতে হলে যে ধরনের  ডকুমেন্ট দরকার বা যিনি সংবাদ সম্মেলন করবেন তিনি কেন করছেন, লিখিত আকারে প্রকাশ না করে শুধু মৌখিক কথার উপর ভিত্তি করে সভাপতি, সম্পাদক সংবাদ সম্মেলনের কয়েক ঘন্টা আগে সংগঠনের গ্রুপে জানান। যদিও তিনি এটা ২ মাস আগে থেকে জানতেন। কিন্তু কোন সদস্য অবগত নয় এই বিষয়টি নিয়েও সদস্যদের মাঝে অনেক বিভাজন তৈরি হয়। এছাড়াও সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয় একটি রেস্টুরেন্টে নাম দেওয়া হয় প্রেসক্লাবের সভাকক্ষে, যা সম্পূর্ণ মিথ্যা ও ভিত্তিহীন। যেখানে আজ পর্যন্ত সংগঠনের নীতিমালাই তৈরী হয়নি, সভাকক্ষ তো দূরের কথা। গত মাসে আমেরিকা থেকে আগত একজন সংবাদ কর্মীকে সংবর্ধনা দেওয়ার জন্য যেভাবে তাড়াহুড়া করে সংবর্ধনা দেওয়া হয়েছে তাও ছিল তাদের একটি নাটক। তারা বলেন, এবার আসি ২১ শে ফেব্রুয়ারি নিয়ে। ২১ শেখ ফেব্রুয়ারি পালন করা হবে বলে সভা আহবান করলে অনেক সদস্যই একদিনের নোটিশে উপস্থিত হতে পারেননি। তাৎক্ষণিক সভায় অন্য সদস্যের সাথে ফোনে যোগাযোগ করলেও আমরা যারা ভেনিসে অবস্থান করছি তাদের সাথে কোন ধরনের আলোচনা না করেই তারা একটি উপকমিটি গঠন করে। যেখানে আমরা যারা সিনিয়র রয়েছি আমাদের কারো নামই তারা রাখেননি। অজুহাত ছিল আমরা সভায় উপস্থিত ছিলাম না বলে। সেই অনুষ্ঠানকে কেন্দ্র করে আমাদের ২জন সদস্য গ্রুপে লেখালেখি করলে তাদেরকে শুধু কারণ দর্শানোর  কথা থাকলেও নিজ নিজ কার্যক্রম থেকে সাময়িক স্থগিত করা হয় এবং সংগঠনের অফিসিয়াল গ্রুপ থেকে রিমুভ করা হয়। যেখানে বলা হয়েছে সকলের মতামতের ভিত্তিতে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। এটাও মিথ্যা। শুধুমাত্র সভাপতি এবং সম্পাদকের ব্যক্তিগত স্বার্থ রক্ষায় তারা এই সিদ্ধান্তে উপনীত হয়েছে। সর্বশেষ কিছু দিন ধরে ২১ উদযাপন অনুষ্ঠানের দাওয়াতপত্র যেভাবে বিতরণ করছে, তাতে মনে হয়েছে এই সংগঠন সাংবাদিকদের সংগঠন না। সাংবাদিকদের সংগঠন এভাবে রাস্তায় আসতে পারে না। বিশ্বস্ত সূত্রে জানা গেছে, এই অনুষ্ঠানের অতিথি করা হয়েছে সংগঠনের উপদেষ্টাকে যিনি ১ হাজার ইউরোর বিনিময়ে অতিথি হয়েছেন। এ বিষয়ে সদস্যদের দ্বিমত থাকলেও তারা সেটিকে কর্ণপাত করেননি। এছাড়াও একাধিক বিষয়ে নিজস্ব সিদ্ধান্তে সংগঠনকে পারিবারিক সংগঠন হিসেবে পরিচালনার কারণে এই ৬ সদস্যের পদত্যাগের কারণ। সর্বোপরি আমরা কয়েকজন যারা সাংবাদিকতার সাথে সম্পৃক্ত সকলেই শেষ সিদ্ধান্তে উপনীত হয়েছি যে তাদের এই মনগড়া ও অসাংগঠনিক এবং অপসংবাদিকতার সাথে আমাদের নিজেদেরকে জড়িয়ে রাখার কোন মানে হয় না। তাই আমরা স্বেচ্ছায় অসংগঠনিক কার্যকলাপের প্রতিবাদ জানিয়ে ভেনিস বাংলাদেশ প্রেসক্লাব থেকে আমরা আমাদের সদস্য পদসহ সকল ধরনের কার্যক্রম থেকে পদত্যাগ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ উল্লাহ সোহেল ও সহ-সভাপতি সোহানুর রহমান উজ্জলের কাছে নিকট পদত্যাগ পত্রটি জমা দিয়েছি। সাংবাদিকদের সূত্রে জানা গেছে, খুব শিগগিরই তারা বৈঠক করে পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেবেন। (প্রেস বিজ্ঞপ্তি)

 

Side banner