Daily Poribar
Bongosoft Ltd.
ঢাকা বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই, ২০২৪, ৩ শ্রাবণ ১৪৩১

চাঁদের পক্ষে ক্ষমা চাইলেন বিএনপি নেতা মিনু


দৈনিক পরিবার | রাজশাহী প্রতিনিধি মে ২৩, ২০২৩, ০৬:২৯ পিএম চাঁদের পক্ষে ক্ষমা চাইলেন বিএনপি নেতা মিনু

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে নিয়ে রাজশাহী জেলা বিএনপির আহ্বায়ক আবু সাঈদ চাঁদের আপত্তিকর বক্তব্যে বিব্রত বিএনপি। দলের নেতারা বলছেন, প্রধানমন্ত্রীকে কবরস্থানে পাঠানোর বক্তব্য বিএনপির দলীয় নয়, এটি চাঁদের নিজের। তার বক্তব্য রাজনৈতিক শিষ্টাচারবহির্ভূত। এর জন্য তারা বিব্রত।
১৯ মে বিকেলে রাজশাহীর পুঠিয়া উপজেলার শিবপুর উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে জেলা ও মহানগর বিএনপি আয়োজিত এক সমাবেশে চাঁদ বলেন, ‘আর ২৭ দফা ১০ দফার মধ্যে আমরা নাই। এক দফা শেখ হাসিনাকে কবরস্থানে পাঠাতে হবে। শেখ হাসিনাকে কবরস্থানে পাঠাতে হবে। শেখ হাসিনাকে পদত্যাগ করার জন্য যা যা করার দরকার আমরা করব।
এটি চাঁদের ব্যক্তিগত বক্তব্য বলে দাবি করেছেন বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা মিজানুর রহমান মিনু। তিনি বলেছেন, চাঁদের এই বক্তব্যের কারণে তারা বিব্রত। এ জন্য দুঃখ প্রকাশ করছেন। মিজানুর রহমান মিনু বলেন, রাজনৈতিক মঞ্চে বক্তব্য দিতে গেলে এ ধরনের ‘স্লিপ অব টাং’ হয়ে যায়।
আমাদেরও এ রকম হয়। আমরা সঙ্গে সঙ্গে সংশোধন করে দিই। দরকার হলে সংবাদ সম্মেলন করে ভুল সংশোধন করি, ক্ষমা চাই। চাঁদ এটা মিস করেছে। তারও সঙ্গে সঙ্গে সংশোধন আনা উচিত ছিল।
তিনি বলেন, ‘চাঁদের বক্তব্য আমাদের দলের কথা নয়। এ ধরনের বক্তব্য না দেওয়ার ব্যাপারেই আমাদের দলের নির্দেশনা। আমরা তত্ত্বাবধায়ক সরকার চাই, শুধু এই বক্তব্যই দেওয়ার কথা আমাদের। কিন্তু চাঁদ আবেগপ্রবণ ছেলে। সে জন্য হয়তো এ ধরনের কথা বলে ফেলেছে। তার বড় ভাই হিসেবে আমি দুঃখ প্রকাশ করছি। তার হয়ে ক্ষমা চাইছি সবার কাছে।
রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগ ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, বিএনপির এই নেতা যে এবারই প্রথম প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে আপত্তিকর বক্তব্য দিয়েছেন তা নয়। এর আগে গত বছরের ২২ জুলাই রাজশাহীর বাঘা উপজেলার বারশতদিয়াড় হাবিবুরের মোড়ে এক জনসভায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সম্পর্কে অশালীন বক্তব্য দেন চাঁদ।
তার এই বক্তব্যের ভিডিও গতকাল রবিবার বিকেলে ছড়িয়ে পড়লে নিন্দা ও প্রতিবাদের ঝড় ওঠে। রবিবার রাতে উপজেলা আওয়ামী লীগের নেতা আবুল কালাম আজাদ চাঁদের বিরুদ্ধে পুঠিয়া থানায় সন্ত্রাসবিরোধী আইনে মামলা করেন। মামলার পর বিএনপির আহ্বায়ক আবু সাঈদ চাঁদ এখন লাপাত্তা। তাকে গ্রেপ্তার করতে খুঁজছে পুলিশ।
আওয়ামী লীগের সভাপতিণ্ডলীর সদস্য এ এইচ এম খায়রুজ্জামান লিটন বলেছেন, ‘প্রধানমন্ত্রীকে হত্যার হুমকি চাঁদের ব্যক্তিগত বক্তব্য নয়। বিএনপি যা ভাবে, ছাত্রদল-যুবদল সব সময় যা ভাবে, সেটি তার মুখ দিয়ে বেরিয়ে এসেছে। তিনি অশিক্ষিত মানুষ, কিভাবে কথা বলতে হয় তা জানেন না। তাই বলে কোনো ছাড় নয়। ইতিমধ্যে তার বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। আরো মামলা হবে। আমরা আবু সাঈদ চাঁদকে রাজপথেই মোকাবেলা করব। তাকে যদি পুলিশ গ্রেপ্তার না করে তাহলে কিভাবে গ্রেপ্তার করাতে হয় সেটিও দেখব।’
পুঠিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ফারুক হোসেন বলেন, ‘আবু সাঈদ চাঁদকে গ্রেপ্তারের জন্য সব ধরনের চেষ্টা চলছে। তিনি বাড়িতে নেই। বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালানো হচ্ছে। কোথাও তাকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না। তবে তিনি লুকিয়ে থাকতে পারবেন না। গোয়েন্দা নজরদারি চলছে। দ্রুত সময়ের মধ্যেই তাকে গ্রেপ্তার করা যাবে।’

 

Side banner